ঢাকা রবিবার, ১৭ই নভেম্বর ২০১৯, ৪ঠা অগ্রহায়ণ ১৪২৬


বুলবুল মোকাবিলায় প্রস্তুত ভোলা, ১০ নম্বর বিপদ সংকেত


৯ নভেম্বর ২০১৯ ০৯:৪৫

আপডেট:
১৭ নভেম্বর ২০১৯ ১০:৪১

ভোলায় ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের পরিস্থিতি মোকাবিলায় প্রস্তুত রাখা হয়েছে ৬৬৮টি আশ্রয়কেন্দ্রসহ কয়েকশত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। সকল বিভাগের প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের ছুটি বাতিল করা হয়েছে। গঠন করা হয়েছে ৯২টি মেডিকেল টিম। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত জেলার অভ্যন্তরীণ সকল নৌযান চলাচল বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

এ ছাড়া দুর্গম চরাঞ্চল থেকে লোকজনকে নিরাপদ স্থানে নিয়ে আসার জন্য পুলিশ, কোস্টগার্ড, নৌ-পুলিশ, সিপিপি, রেডক্রিসেন্ট, রোভারস্কাউটসহ বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের প্রায় ১৩ হাজার স্বেচ্ছাসেবক কাজ করছে।

শনিবার দুপুর ১২টার মধ্যে উপকূলীয় সকল মানুষকে নিরাপদে নিয়ে আসা হবে বলে জানিয়েছে জেলা প্রশাসন। বিশেষ করে নারী, শিশু, বৃদ্ধ ও প্রতিবন্ধীদের নিরাপদ স্থানে সরিয়ে আনার জন্য বিশেষ টিম গঠন করা হয়েছে।

এদিকে ত্রাণ মন্ত্রণালয় থেকে ইতোমধ্যে নগদ ১০ লাখ টাকা, ২০০ মেট্রিকটন চাল এবং ২০০০ প্যাকেট শুকনো খাবার বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

জেলা প্রশাসক জানান, ভোলায় বন্দরগুলোতে ১০ নম্বর বিপদ সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে। ভোলার ঢালচর, কুকরি-মুকরি, চরনিজামসহ বিভিন্ন চরাঞ্চলে অন্তত ২ লক্ষাধিক মানুষ বাস করছে। এসব ঝুঁকিপূর্ণ স্থানের মানুষজনকে নিরাপদে সরিয়ে আনার ওপর বিশেষ জোর দেওয়া হচ্ছে। গবাদি পশুর নিরাপত্তার জন্য জেলায় ৩৯টি মুজিব কিল্লা প্রস্তুত রাখা হয়েছে।

জেলা প্রশাসক আরও জানান, ৬৬৮টি আশ্রয় কেন্দ্রে আশ্রয় নেওয়া লোকজনকে সকাল, দুপুর এবং রাতে খাবারের ব্যবস্থা করা হয়েছে। পাশাপাশি শুকনো খাবারের ব্যবস্থাও রাখা হয়েছে।